HOT POST

Recent Post

ইন্টারনেটের অন্ধকার যুগ কী ৷ Dark web দিয়ে কী কী কাজ হয় আলোচনা ও বিস্তারিত ৷

Dark বা ডিপ ওয়েব কীভাবে বা এটা আসলেই কী :
সাধানরনত Wiki এর মতে :- যে সকল সাইট জনসাধারনের জন্য উন্মুক্ত না, বা প্রতিষ্ঠাতা রা চান না সাইট গুলো কেউ সার্চ করে খুজে পাক সেগুলো কেই ডীপ ওয়েব বলে।
অন্য কথায় internet এ লুকায়িত ডাটাকেই Darkweb।

আসলেই এটার কাজ কি ?


১৷পাওয়া যায় ড্রাগস ২৷আর্মস ৩৷ চাইল্ড পূর্ন মুভি ৪৷বিভিন্ন রাসায়নিক দ্যব্যে ৷৪৷ এমনকি খুনি ইত্যাদি ইত্যাদি ৷
যদিওবা আপনি ভুল শোনেন নাই, একটা বিজ্ঞাপন দেখলাম একজন মুখস পড়া ব্যক্তি, হাতে একটা ভয়ানক ছোরা নিয়ে ছবি দিয়ে রাখছে, ক্যাপশন ” I Can Kill Anyone For Money” ।
আরেকটি বিজ্ঞাপন দেখলাম ইরাক যুদ্ধে ব্যাবহৃত শটগান ! বিক্রি করতে চাচ্ছে, তাও ওদের ভাষায় Cheap Rate এ ! পুরাই মাথানষ্ট মাম্মা !!

নানা রকম হ্যাকিং টিউটোরিয়াল, বিভিন্ন পাইরেটেড টুলস , ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্যে কি নাই।



খাড়ান , আগে বুঝায় বলি ডিপ ওয়েব জিনিস টা কি।


অনলাইনে যা কিছু আছে তার পরিমান কল্পনা করা আমার ধারনার বাইরে, এর মধ্য কিছু লিখে সার্চ করলে যতগুলো আসবে তা ঘেটে দেখতে গেলেই আমার কবছর লাগবে নিজেও জানি না। যদিও এটা একটা বিষয় ৷

আরেকটি মজার বিষয় হলো মোট তথ্য বা ফাইলের শতকরা ১% নাকি আমরা দেখতেছি বাকি ৯৯% ই লুকানো অবস্থায় থাকে। এগুলোই হলো ডার্কওয়েবের জিনিষ পত্র পত্রাদি ৷


গুলোল darkweb এ পৌছায় কতটুকু?

জেনে অবাক হয়ে যাবেন যে আপনি যখন কোন বিষয়ে সার্চ দেন আর গুগল তার লক্ষ লক্ষ ফলাফল আপনার সামনে হাজির করে তা ইন্টারনেটে থাকা মোট তথ্যের মাত্র ১০ শতাংশ থেকে প্রাপ্ত! অর্থাৎ গুগল অনলাইনের মোট তথ্যের ৯০ শতাংশ জানে না! এলেমে থাকা মাত্র ১০ শতাংশের মধ্যেই সার্চ দিয়েই সে তার ফলাফলকে গ্রাহকের সামনে হাজির করে। বাকি ৯০ শতাংশ চিরকালই আপনার অজানা থেকে যাবে কী আর্চয়ের বিষয় ৷
প্রকৃতপক্ষে এই দৃশ্যমান নেট হল মহাসাগরে ভেসে থাকা এক খন্ড হিমবাহ আর ডীপ ওয়েব হল মহাসাগর খোদ নিজে!

Short Cut:-

খুব সহজ ভাবে উপস্থাপন করতে গেলে Dark ওয়েবেকে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা যায়, আর তা হলঃ 1. The Dark ঔয়েব 2. The Deep ওয়েব
এ দুটোই নিয়ে পরবর্তি পষ্টে আলোচনা হবে ৷

আরো ভালোভাবে বলতে গেলে ?

আপনার খাটের তলায় ইট দেয়া না লোহা দেয়া তা তো আমার জানার কথা না, সেটা তো থাকে ঢাকা, সেটারে দেখতে হলে আমারে বিছানার পর্দা ওঠাতে হবে । তেমনি ধরেন আমেরিকার একটা সাইট আছে, যেটাতে বিমান বাহিনীর বিভিন্ন মিসাইলের তথ্য, কেমনে ব্যাবহার করা হবে, কই ফেলা যাবে, এসব রাখা আছে। আমেরিকান সরকার কি চাবে যে কেউ খুজে পাক সেই তথ্য ? উহু, সেটারে রাখা হবে অন্ধকারে, বা ডার্ক ওয়েবে। বুঝছেন ?

খারাপ দিক(Bad Site)

বেয়াইনী জিনিষ পত্র অনেক টা খোলাখুলি ভাবেই রাখা হয় এখানে । অস্ত্র, বোমা বানানোর সিস্টেম, মাদক দ্রব্য সব যদি অনলাইনে কিনেই নিতে পারেন ৷ খুব সুরক্ষিত তথ্য বা কপিরাইট প্রটেক্টেড অনেক কিছুই এখানে পাওয়া সম্ভব। কম্পানীর কিছু করার নাই, কার নামে মামলা করবে ? এটা হলো ডিপ ওয়েব। এখানে যারা কাজ করেন মোটামুটি সবাই খুব উচু মানের প্রোগামার অন্যদিকে ওখানে Youtube এর মত নাম গুলো ব্যাবহার করা হয় না, ব্যাবহার করা হয় না কোনো .com .net ডোমেইন সথে সাথে এখানের সব যেহেতু লুকিয়ে রাখা, সো আন্দাজ করে কোন সাইটে ঢোকা অসম্ভব অনেক ক্ষেত্রেই। ব্যাবহৃত হয় .onion নামে ডোমেইন, সাইট গুলোর এ্যাড্রেস হয় tef3bpi1.onion এরকম । বুঝেন ঠ্যালা !

কিছু দরকারী দিকও রয়েছে এতেঃ

গোপনীয়তা বজায় রাখতে কোন বিকল্প নাই। সরকারী গোপন তথ্য রাখতে সাহায্য করে।

ভালো দিকসমূহঃ

যাদের শেখার আগ্রহ আছে, হ্যাকিং, প্রোগামিং, টিপস, এ সম্পর্কে অঢেল লেখা, তাও সেরা মানের প্রোগামার দের।
ডার্ক ওয়েব ( Dark Web ) বা ইন্টারনেট এর কালো জগত পর্বঃ২ এ আলোচনা হবে নটুন আপডেট বিষয় নিয়ে Tor & Orbot এর আলোচনা ৷ ধন্যবাদ ৷ All The Best ৷

Comments

Post a Comment

Say Whats Happed ?

Popular posts from this blog

বিনা টাকায় ফেসবুকে প্রমোট এবং বুস্ট করুন [সবাই পারবেন ]

আপনার ইউটিউব ভিডিও এবার ফ্রি বুস্ট করুন

Responsive Palki 2 Blogger Premium Templat For Free 2019